১৭ অক্টোবর, ২০১৭
English
Lucky business idea
Do Business, Be your Boss.

স্বাগত। সামর্থ্যের মধ্যে পছন্দের বিভাগ থেকে খুঁজে নিন ব্যবসার আইডিয়া। লক্ষ্য স্থির করুন বিনিয়োগের ওপর মুনাফা পাওয়ার সম্ভাবনায়। জানুন উৎপাদনের প্রক্রিয়া এবং পণ্যের বাজারজাতকরণ সম্পর্কে। আর্থিক সংকটে বসে থাকা আর নয়। এখন থেকে নিজের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করুন। হয়ে উঠুন নিজেই নিজের বস। Do Business, Be Your Boss

পণ্য :

মুড়ি, চিড়া ভাজা

সম্ভাব্য পুঁজি: ১০০০০ টাকা থেকে ৫০০০০ টাকা পর্যন্ত
সম্ভাব্য লাভ:

২৫ কেজি চাল দিয়ে প্রায় ২২ কেজি মুড়ি উৎপাদন করা যায়। আবার এক মণ ধানে ২৫ কেজি চিড়া হয়। এক কেজি মুড়ির চাল কিনতে খরচ হয় ৩০ থেকে ৪০ টাকা। এক কেজি মুড়ি বিক্রি হয় ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা। চিড়ার জন্য এক মণ ধান কিনতে খরচ হয় ১৬০ থেকে ২০০ টাকা। এক কেজি চিড়া বিক্রি হয় ১২০ টাকা থেকে ১৪০ টাকা।

প্রস্তুত প্রণালি:

দুটি পাত্রের একটিতে চাল আর অন্যটিতে বালি দিয়ে চুলায় ভাজতে হবে। চাল ভাজার সময় পরিমাণমতো লবণ দিতে হবে। চাল  ভাজা হলে গরম বালিতে ঢেলে লোহার বেড়ি দিয়ে শক্ত করে ধরে ঝাঁকিয়ে মিশিয়ে নিলেই চাল ফুটে মুড়ি হয়ে যাবে। চিড়া ভাজতে মেশিনের ব্যবহার করা হয়। যদিও প্রথমে চিড়া ভাজার জন্য ধান প্রায় ২৪ ঘণ্টা পানিতে ভিজিয়ে রেখে বালুতে মিশিয়ে ভাজতে হয়। চাল ভাজা হয়ে এলে বালুসহ তা মেশিনে ঢেলে দিলেই চিড়া হয়ে বের হয়ে আসে।

বাজারজাতকরণ:

মুড়ি, চিড়া দিয়ে মুড়কি, মোয়াসহ নানা মজাদার খাবার তৈরি করা যায়। মুদি দোকান থেকে শুরু করে মেগা শপেও সরবরাহ করা যায়। চিড়া আলাদা করে মিষ্টির দোকানে সরবরাহ করা যায়। আর মুড়ি তো প্রায় সব বাড়িতেই পাওয়া যায়।

যোগ্যতা:

দক্ষ শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে চিড়া-মুড়ি তৈরি করা যায়।

নতুন কোন ব্যবসার কথা ভাবছেন?
আমাদের সাথে শেয়ার করুন Lucky business idea